বড় জয়ে শুরু শেখ জামালের

fed-cup-2016-logoমাঠের বাইরে বড় ধরনের ঝড় বয়ে গেছে শেখ জামালের উপর দিয়ে। দলবদলে ভেঙ্গে চুরমার হয়েছে ফেডারেশন কাপের সর্বশেষ আসরের চ্যাম্পিয়নরা। ৮ ফুটবলার নিয়ে তাদের বাফুফে ভবন আর আদালতে দৌঁড়াদৌঁড়ির লড়াইয়ে হেরে গেছে। এক কথায় বিধ্বস্ত এক দলের নাম শেখ জামাল। ফেডারেশন কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে মোহামেডানকে রুখে দিয়েছে রহমতগঞ্জ, একই রাতে আবাহনীকে হারিয়েছে আরামবাগ। জায়ান্টদের এমন শুরুর পর চ্যাম্পিয়নদের ফেডারেশন কাপ যাত্রা কেমন হয় তা দেখার কৌতূহল ছিল অনেকের। শেখ জামাল সে কৌতূহল মিটিয়েছে অর্ধডজন গোলের উৎসবে। আজ (শনিবার) বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত নিজেদের প্রথম ম্যাচে হলুদ জার্সিধারীরা ৬-২ গোলে জিতেছে উত্তর বারিধারার বিপক্ষে। সহজ জয়ে জামালের বড় অবদান গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার ডার্বো ল্যান্ডিংয়ের। প্রথম ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করেছেন তিনি।

প্রথম মিনিট পনেরো শেখ জামালকে চেপে ধরে অঘটনের চোখ রাঙাচ্ছিল বারিধারা। ১২ মিনিটে পরিকল্পিত আক্রমনে দারুন একটি সুযোগ তৈরী হয়েছিল তাদের। কিন্তু বক্সের বাইরে থেকে শিতুলের প্লেসিং শটের বল ঝাপিয়ে কর্ণারের বিনিময়ে দলকে বিপদমুক্ত করেন গোলরক্ষক হিমেল। এরপরই শেখ জামালের ‘দানব’ হয়ে ওঠা। ২৩ থেকে ৩০-এই সাত মিনিটের ব্যবধানে ২-০। এনামুলের যোগান দেয়া বল ঠান্ডা মাথায় বারিধারার গোলে ঠেলেন গাম্বিয়ান ল্যান্ডিং। পরেরটা তিনজনকে কাটিয়ে ওয়েডসনের।

Landing
দ্বিতীয়ার্ধে আরও বেশি রুদ্রমূর্তি দেখা যায় শেখ জামালকে! দ্রুত এনামুল-ওয়েডসনের পা ঘুরে আসা বলে নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোল গাম্বিয়ান ল্যান্ডিংয়ের। ৬৩ মিনিটে হাইতিয়ান ওয়েডসনের দেয়া বলে চোখ ধাঁধানো গোলে হ্যাটট্রিক পূরণ ম্যাচসেরা ল্যান্ডিংয়ের। যদিও হ্যাটট্রিক হওয়ার পর তাকে তুলে নেন কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক। এর আগে ও পরের দুই গোল এনামুল ও ইয়াসিন খানের। ল্যান্ডিংয়ের দেয়া বল ওয়েডসনের ব্যাকহিলে গোলে ঢোকার মুখে এনামুলের পা ছুয়ে যায়। শেষ মিনিটে সুইটের ভাসানো বল মাপা হেডে ৬-২ ইয়াসিনের। ৫৩ মিনিটে আশারাফুল করিমের ভুলে পাওয়া পেনাল্টিতে খালেকুজ্জামান ৩-১ করলেও রোহিত সরকারের ৫-২ করা গোল নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। ডানদিক থেকে অধিনায়ক সেন্টু চন্দ্রের তুলে দেয়া বল পেনাল্টি বক্সের ওপর থেকে মাপা শটে দূরের পোস্টে পাঠান অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এই স্ট্রাইকার।

তবে দু’দলের পার্থক্য গড়েছেন শেখ জামালের ওয়েডসন ও ল্যান্ডিং। এমেকা না থাকায় ওয়েডসনের সঙ্গে উপরে ছিলেন ল্যান্ডিং। ৪-৩-৩ ছক ভেঙে ৪-৪-২তে কিছুটা পেছনে খেলেছেন এনামুল। রক্ষণের ওপরে জামাল ভুইয়ার পজিশনে খেলেছেন মিশরিয়ান ইলিগিলানী নাগি। দলের শক্তি যা-ই হোক, ফেডারেশন কাপের ট্রফি ধরে রাখতে শেষ চারের দিকে এক পা এগিয়েছে মনজুর কাদেরের ছেলেরা।

Rent for add