ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ

আবাহনীর আরেকটি অনায়াস জয়

Abahaniএক সময় আবাহনীর সুপার লিগে উঠার সম্ভাবনাটাই পড়ে গিয়েছিল শঙ্কার মধ্যে। সময়ের ব্যবধানে সেই আবাহনীই এখন লিগ শিরোপার অন্যতম দাবিদার। আজ (শনিবার) ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবকে ৬ উইকেটে হারিয়ে আবাহনী উঠে গেছে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে আবাহনীর এই অনায়াস জয়ের নায়ক মূলত তিনজন। সাকিব আল হাসান, তাসকিন আহমেদ এবং সাকলাইন সজিব। তিনজনেই নিয়েছেন ৩টি করে উইকেট। এই ত্রয়ীর অসাধারণ বোলিংয়ে ১৩৯ রানেই গুটিয়ে যায় শিরোপার দৌড়ে থাকা ভিক্টোরিয়ার ইনিংস। ১৪০ রানের লক্ষ্য আবাহনী ছুঁয়ে ফেলে ২৯.২ ওভারেই, মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ভিক্টোরিয়ার উদ্বোধনী জুটিটা ভাঙ্গেন শুরু থেকেই দুর্দান্ত বোলিং করা তাসকিন। ফিরিয়ে দেন দেন ফজলে মাহমুদ রাব্বিকে। এরপর টানা ৬ ওভারের স্পেলে সাকিব তুলে নেন ৩ উইকেট। একে একে ওপেনার মজিদ, মুমিনুল ও নাদিফ চৌধুরীকে আউট করে ভেঙ্গে দিয়েছেন ভিক্টোরিয়ার ইনিংসের মেরুদ-। মিডল অর্ডারে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ গড়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সোহরাওয়ার্দী শুভ। কিন্তু তাসকিনের বলে আঘাত পেয়ে মাঠ ছেড়ে তাকে ভর্তি হতে হয়েছে হাসপাতালে। মাথার পেছনে ঘাড়ের কাছে বল লাগে তার। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে নেওয়া হয় হাসপাতালে। আপাত তিনি শঙ্কামুক্ত বলেই জানা গেছে।

সাকিবের পর সাকলাইন এসে নিজের প্রথম ওভারেই ফিরিয়ে দেন এবারের লিগে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ৬০০ রান পূর্ণ করা তরুণ আল আমিনকে। শুভ ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করলেও তাকে মাঠ ছাড়তে হয়েছে দুর্ভাগ্যজনকভাবে। পরে সাকলাইন-তাসকিন আরও দুটি করে উইকেট নিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছেন ভিক্টোরিয়ার ইনিংস।
লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আবাহনীকে উদ্বোধনী জুটিতেই ৫১ রান এনে দেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। তামিমের বিদায়ে ভাঙ্গে এই জুটি। এরপর দলীয় ৬৮ রানে আবাহনী ইনিংসে যুগল আঘাত। ফিরে সাকিব ও লিটস দাস। দলকে ১০১ রানে নাজমুল হোসেন শান্ত ফিরে গেলেও মোসাদ্দেককে সঙ্গে নিয়ে বাকি কাজটুকু সেরেছেন ভারতীয় ক্রিকেটার দিনেশ কার্তিক।

উইকেট শিকারে তাসকিন-সাকলাইন পাল্লা দিতে পারলেও ম্যাচসেরার পুরস্কারটি পেয়েছেন সাকিবই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভিক্টোরিয়া: ৩৬.২ ওভারে ১৩৯ (মজিদ ১৬, ফজলে রাব্বি ৮, মুমিনুল ২৩, আল আমিন ১৭, নাদিফ ৯, শুভ (রিটায়ার্ট হার্ট) ২১, চতুরঙ্গা ১২, ধিমান ১৫, এনামুল ১১, মাহবুবুল ২, কামরুল রাব্বি ১; তাসকিন ৩/৩০, আবুল হাসান ০/৪১, সাকিব ৩/২৮, মোসাদ্দেক ০/১৪, সাকলাইন ৩/১৩, তাপস ০/১২)।

আবাহনী: ২৯.২ ওভারে ১৪০/৪ (তামিম ৩৩, লিটন ১৮, সাকিব ৯, শান্ত ২২, কার্তিক ৩২*, মোসাদ্দেক ১৮*; কামরুল রাব্বি ০/৩৭, মাহবুবুল ০/১১, আল আমিন ০/২৯, চতুরঙ্গা ২/৩১, এনামুল ২/৩২)।

ফল: আবাহনী ৬ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দা ম্যাচ: সাকিব আল হাসান।

Rent for add