ইউরো কাপ

সেই ইতালিতেই বিদায় স্পেনের

italy
চার বছর আগে ইউরো কাপের ফাইনালে ইতালিকে হারিয়ে দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল স্পেন। সঙ্গে স্বপ্ন তৈরী হয়েছিল হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। কিন্তু হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মিশনটা এত করুনভাবে শেষ হবে স্প্যানিশদের তাহয়তো ভাবতেই পারেনি কেউ। তাদের সে স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে ইতালি। গতকাল (সোমবার) রাতে অনুষ্ঠিত শেষোর ম্যাচে স্পেনকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে আজ্জুরিরা।

চিয়েল্লিনি-বুফনদের জ্বলে ওঠার রাতে মাঠে না খেলেও দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন কোচ অ্যান্থনিও কন্তে। শক্তিশালি স্পেনকে রুখতে এ ম্যাচে নিজেদের সেরাটা দিয়ে খেলে ইতালি। শুরু থেকেই স্পেনকে চাপে রাখতে সক্ষম হয় তারা।

ম্যাচের ৯ মিনিটে প্রথম আক্রমণের সুযোগ পায় ইতালি। পেল্লের করা দ্রুতগতির হেড কোনমতে কর্নার করে দলকে বাচানা ডে গিয়া। ১১ মিনিটেই প্রথম গোলের দেখা পেতো ইতালি যদি না গিয়াচিরিন্নির বাই সাইকেল কিকটি দুর্দান্ত ভঙ্গিমায় না রুখতেন ডেভিড ডে গিয়া। ২৪ মিনিটে আবারো ইতালির আক্রমণ। এবার পারলোর দূরপাল্লার শট গোলবারের সামান্য বাইরে দিয়ে চলে যায়।

৩৩ মিনিটে ডি বক্সর বাইরে ইতালির খেলোয়াড়কে ফাউল করেই বিপত্তি ডেকে আনে স্পেন। এদারের করা ফ্রি কিক ডে গিয়া রুখে দিলেও ফিরতি বলে গিয়াচিরিন্নির পাসে গোল করে দলকে আনন্দে ভাসান চিয়েল্লিনি। প্রথমার্ধের শেষ সময়ে গিয়াচিরিন্নির আরো একটি শট রুখে দেন স্পেনের ত্রাতা ডে গিয়া।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোল শোধে মরিয়া হয়ে ওঠে স্পেন। ৫৫ মিনিটে মোরাতার বুলেট গতির শট রুখে দেন জুভেন্টাস গোলকিপার বুফন। ৬০ মিনিটে আবারো মোরাতাকে গোলবঞ্চিত করেন বুফন। এবার ২৫ গজ দূর থেকে নেয়া শট রুখে দেন তিনি। ৭৫ এবং ৭৭ মিনিটে দুটি অসাধারণ আক্রমণ করলেও গোল পায়নি স্পেন।

উল্টো ম্যাচের শেষ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে গোল খেয়ে বসে স্পেন। পেল্লের করা দ্বিতীয় গোলেই স্পেনের বাড়ি ফেরার টিকিট নিশ্চিত হয়। এই জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে খেলতে হবে ইতালিকে।

Rent for add