বিশ্বকাপ বাছাই : ব্রাজিলের অধিনায়ক নেইমার

সময় খুব একটা ভালো যাচ্ছে না নেইমার দি স্যান্তোস জুনিয়রের। ক্লাবের জার্সি গায়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে হারের পর সাম্প্রতিক সময়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। করোনাকে হারিয়ে মাঠে ফেরার প্রথম দিনেই বিপত্তি। প্রতিপক্ষ ফুটবলারকে পিছন থেকে আঘাত করে লাল কার্ড দেখা, তার জেরে আবার তাকে দু’ম্যাচ নিষিদ্ধ করেছে ফরাসি ফুটবলের গভর্নিং বডি।

এদিকে নেইমারের শাস্তির আড়ালে অনেকটাই ঝাঁঝ হারাচ্ছে তার প্রতি বিপক্ষ ফুটবলারের বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ। যদিও এব্যাপারে ব্রাজিলিয়ান তারকা পাশে পেয়েছেন তার দেশ এবং ক্লাবকে। ব্রাজিল জাতীয় দলের কোচ তিতের ঘোষণায় নেইমারের প্রতি তার দেশের অগাধ আস্থা আরও একবার প্রকট হল। নেইমারকে সামনে রেখেই আগামী মাস থেকে ২০২২ বিশ্বকাপ যোগ্যতা অর্জন পর্বে নামবে সেলেসাওরা। অর্থাৎ, বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে নেইমারের হাতেই থাকছে দলের আর্মব্যান্ড।

স্কোয়াডে চমক বলতে লিওঁ মিডফিল্ডার ব্রুনো গুইমারায়েস। বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে জাতীয় দলের জার্সিতে অভিষেক হতে পারে তার। এছাড়া রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকার রদ্রিগোকে দলে ফিরিয়েছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। আগামী ৯ অক্টোবর সাও পাওলোতে বলিভিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে অভিযান শুরু করবে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

এরপর চার দিন বাদে লিমাতে পেরুর মুখোমুখি হবে তারা। ম্যাচগুলো প্রাথমিকভাবে গত মার্চে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও করোনা মহামারির কারণে পিছিয়ে গেছে তা। লিগা ওয়ানে দু’ম্যাচ নিষিদ্ধ ব্রাজিলিয়ান তারকার নেতৃত্বেই সেই বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে যাত্রা শুরু করতে চলেছে সাম্বার দেশ।

আলভারো গঞ্জালেস নেইমারের বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ অস্বীকার করলেও তার বিরুদ্ধে অভিযোগকে কেন্দ্র করে তদন্ত শুরু করেছে সে দেশের ফুটবলের গভর্নিং বডি। উল্লেখ্য, মার্সেই ম্যাচে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সময় ম্যাচ অফিসিয়ালকে নেইমার জানান যে তিনি বর্ণবাদের শিকার হয়েছেন।

ম্যাচের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্রাজিলিয়ান তারকা জানিয়েছিলেন আলভারো তাকে ‘বানর’ বলে সম্বোধন করেছেন। নেইমারের অভিযোগকে সমর্থন জানিয়ে আগেই পাশে দাঁড়িয়েছিল ক্লাব। পরে তার দেশের সরকারকেও এ ব্যাপারে পাশে পেয়েছেন নেইমার।

একনজরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ব্রাজিলের স্কোয়াড
গোলরক্ষক:
অ্যালিসন বেকার, স্যান্তোস, ওয়েভার্টন।

ডিফেন্ডার: দানিলো, গ্যাব্রিয়েল মেনিনো, অ্যালেক্স টেলেস, রেনান লোডি, থিয়াগো সিলভা, মার্কুইনহোস, ফিলিপ, রদ্রিগো সাইও।

মিডফিল্ডার: ক্যাসেমিরো, ফ্যাবিনহো, ব্রুনো গুইমারায়েস, ডগলাস লুইজ, ফিলিপ কৌতিনহো, এভার্টন রিবেইরো।

ফরোয়ার্ড: গ্যাব্রিইয়েল হেসুস, রদ্রিগো, নেইমার, এভার্টন, রবার্তো ফিরমিনো, রিচার্লিসন।