for Add

যেভাবে ফাইনালে কিংস-সাইফ

ওয়ালটন ফেডারেশন কাপের ফাইনালে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ও সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেড মোকাবিলা করবে। আগামীকাল ১০ জানুয়ারি দল দু’টি শিরোপা লড়াইয়ে অবর্তীণ হবে। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেল ৪টায় ম্যাচটি শুরু হবে। টি-স্পোর্টস খেলাটি সরাসরি সম্প্রচার করবে।

শিরোপা লড়াইয়ে কিংস টানা তৃতীয়বারের মতো ফেডারেশন কাপের ফাইনাল খেলতে যাচ্ছে। কিন্তু সাইফ এবারই প্রথমবারের মতো স্বপ্নের ফাইনালে উঠে এসেছে। এর আগে দলটি কখনোই কোয়ার্টার ফাইনালের বাধা পেরুতে পারেনি।

কাগজ-কলমে শক্তির বিচারে কিংসই এগিয়ে রয়েছে। তবে সেরাটা দিয়েই সাইফ প্রতিপক্ষকে মোকাবিলা করার চেষ্টা করবে।

ফেডারেশন কাপে কিংস-সাইফ এখনো অপরাজিত রয়েছে। গ্রুপপর্ব, কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালে শিরোপা প্রত্যাশী এ দল দু’টি যোগ্যতার মাপকাঠিতেই ফাইনালে উঠে এসেছে। প্রতিটি ম্যাচেই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে তারা সেরা নৈপূণ্য দেখিয়েই এ পর্যন্ত এসেছে। ফাইনালে শেষ হাসি কে হাসে সেটাই দেখার অপেক্ষায় ক্রীড়াপ্রেমীরা।

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন কিংস শিরোপা অক্ষুন্ন রেখে ফেডারেশন কাপের আরো একটি ট্রফি ঘরে উঠানোর স্বপ্ন দেখছে। অপরদিকে সাইফ তিনবার ফেডারেশন কাপ খেলে দু’বারই কোয়ার্টার ফাইনালে এসে থেমে গিয়েছিল। এবার কোয়ার্টার ফাইনাল তো বটেই সেই সাথে সেমিফাইনালের বাধা পেরিয়ে সোজা ফাইনালমঞ্চে উঠে এসেছে। সাইফের সামনে এখন নতুন ইতিহাস গড়ার হাতছানি দিচ্ছে।

এবার এক নজরে দেখে নেয়া যাক যেভাবে কিংস-সাইফ ফাইনালে উঠে এসেছে

বসুন্ধরা কিংস :
‘সি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস গ্রুপপর্বের প্রথম ম্যাচে ৩-০ গোলে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে এবং দ্বিতীয় ম্যাচে ১-০ গোলে চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডকে পরাজিত করে। এর পর কোয়ার্টার ফাইনালে তারা ২-০ গোলে লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সেমিফাইনালে তারা ৩-১ গোলে ১১ বারের চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী লিমিটেডকে হারিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে উঠে আসে।

সাইফ স্পোর্টিং :
‘বি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেড গ্রুপপর্বে চার দলের লড়াইয়ে শতভাগ জয় নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে। প্রথম ম্যাচে তারা ৩-০ গোলে উত্তর বারিধারা ক্লাবকে, দ্বিতীয় ম্যাচে ৬-১ গোলে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে এবং গ্রুপ পর্বেরতৃতীয় তথা শেষ ম্যাচে ১-০ গোলে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে পরাজিত করে। এর পর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ কোয়ার্টার ফাইনালে ২(৭) – ২(৬) গোলে ঢাকা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেডকে পরাজিত করে শেষ চারে উঠে আসে। পরবর্তীতে সেমিফাইনালে তারা ৩-০ গোলে চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডকে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে জায়গা করে নেয়।

for Add