বিশ্বকাপ আয়োজন নিয়ে যে প্রস্তাব দিলেন গাভাস্কার

sunnyপ্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন থমকে আছে। ভবিষ্যতের ক্রিকেট সিরিজ নিয়েও শঙ্কা শুরু হয়ে গেছে। তাই আগামী অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ার টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনও হুমকির মুখে। কেননা করোনাভাইরাসের কারণে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ায় লকডাউন থাকছে। আর বিশ্বকাপ শুরু হবে ১৮ অক্টোবর। যদি লকডাউন উঠে যায়, পরের দু’সপ্তাহে বিশ্বকাপ আয়োজনের কার্যক্রম সামলানো কঠিনই হবে অস্ট্রেলিয়ার জন্য। তাই অভিনব এক প্রস্তাব দিয়েছেন ভারতের লিটল মাস্টার সুনীল গাভাস্কার।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের এখনও পাঁচ মাসের বেশি সময় বাকী। তারপরও বিশ্বকাপ নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়ে গেছে। আইসিসিও বলছে, শেষ পর্যন্ত দেখবে, তারপর বিশ্বকাপ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবে। কিন্ত আমি মনে করছি, বিশ্বকাপ আয়োজন নিয়ে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড আলোচনায় বসতে পারে।

আলোচনাটি এমন হতে পারে, লকডাউন শেষ হবার পর দু’সপ্তাহে বিশ্বকাপ আয়োজনের সময় পাবে অস্ট্রেলিয়া। সেটি তাদের জন্য কঠিনই বটে। তাই অস্ট্রেলিয়া যদি বিশ্বকাপ আয়োজন না করতে পারে তাহলে ভারতকে পরের বিশ্বকাপ আয়োজন করার সুযোগ দিতে পারে। আর ২০২১ সালের বিশ্বকাপ যেটি ভারতে হবার কথা সেটি অস্ট্রেলিয়া আয়োজন করতে পারে। এতে কোন পক্ষেরই ক্ষতি হবে না। বিশ্বকাপও আয়োজন হবে, শুধুমাত্র আয়োজন অদল-বদল করবে দু’দেশ।’

করোনাভাইরাসে ভারতের পরিস্থিতিও সুবিধার নয়। তবে গাভাস্কারের আশা, আরও কিছু সময়ের মধ্যে ভারত সরকার সবকিছু নিয়ন্ত্রণ নিতে পারবে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। তিনি বলেন, ‘আগামী এক-দুই মাসের মধ্যে ভারতের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে আশা করছি। তবে এবারের বিশ্বকাপ ভারত আয়োজন করার সামর্থ্য রাখবে।’

বিশ্বকাপের পাশাপাশি বিশ্বের সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আইপিএলের ১৩তম আসর নিয়েও কথা বলেন গাভাস্কার। যা গত ২৯ মার্চ শুরুর নির্ধারিত সময় ছিল। কিন্ত বর্তমান পরিস্থিতির কারণে ইতোমধ্যে আইপিএল অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে গেছে। বাসস

গাভাস্কার বলেন, ‘ভারত-অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড যদি বিশ্বকাপ অদল-বদল করতে রাজী হয় তবে, বিশ্বকাপের ঠিক আগ মূর্হুতে আইপিএল আয়োজন করা যেতে পারে। ফলে আইপিএল দিয়ে খেলোয়াড়রা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সারবে। সেই সাথে ভারতের কন্ডিশনের সাথে মানিয়েও নিতে পারবে খেলোয়াড়রা।’