আবারো দুস্থদের সহায়তায় দাবা ফেডারেশন

235226kk--3--22-06-2020-13প্রাণঘাতি নভেল করোনাভাইরাসের প্রভাবে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ দাবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দুস্থ ও অস্বচ্ছল দাবাড়ু, প্রশিক্ষক, সংগঠক ও আরবিটারদের সহায়তা করার জন্য বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশন (বাদাফে) আবারো এগিয়ে এসেছে।

বাদাফে সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাবউদ্দিন শামীম বলেন, দেশে করোনাভাইরাস শুরু হবার সঙ্গে সঙ্গেই দাবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এমন দুস্থ ও অস্বচ্ছলদের সহায়তা কারার জন্য একটি ফান্ড গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়। এতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় আবুল খায়ের গ্রুপ।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, আবুল খায়ের গ্রুপ থেকে প্রাপ্ত অর্থের একাংশ প্রথম দফায় দাবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এমন শতাধিকের বেশি দুস্থ ও অস্বচ্ছলদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। এতে তারা এককালীন ৫ হাজার টাকা করে অর্থ সহায়তা পান।

এর পর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের মাধ্যমে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপির থেকে দাবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এমন ২০ জন দাবাড়ৃ আর্থিক সহায়তা পেয়েছেন। এদের প্রত্যেকেই এককালীণ নগদ ১০ হাজার টাকা করে পেয়েছেন।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশন দুস্থ ও অস্বচ্ছলদের সহায়তা করার জন্য আবারো এগিয়ে এসেছে। আবুল খায়ের গ্রুপ থেকে প্রাপ্ত বাকি অংশের অর্থ থেকে দুস্থ ও অস্বচ্ছলদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হবে।

এরই মধ্যে ফের নতুন করে দুস্থ ও অস্বচ্ছলদের নামের তালিকা করতে শুরু করেছে বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশন (বাদাফে)। একই সঙ্গে ফেডারেশনটি এসোসিয়েশন অব চেস প্লেয়ার্স বাংলাদেশ (এসিপিবি) _কে একটি নামের তালিকা প্রেরণ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে।

বাদাফে সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাবউদ্দিন শামীম বলেন, করোনাভাইরাসের এ বৈশ্বিক মহামারীর প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। এখনো দেশের কোথাও কোথাও লকডাউন চলছে। এর ফলে বেশ কিছু খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, সংগঠক, আরবিটারবৃন্দ আর্থিক সংকটে রয়েছেন। তাদের সহায়তা করার জন্যই আমরা আবার এ উদ্যোগ নিয়েছি।

এক প্রশ্নের জবাবে বাদাফে সাধারণ সম্পাদক জানান, আমি ব্যক্তিগতভাবেও তাদের অনেককে সহযোগিতা করছি। আমার মতো হয়তো দাবার অনেকেই তা করছেন। এ ব্যাপারে কার্যনির্বাহী কমিটির একান্ত সহযোগিতা কামনা করেছেন।