আত্মবিশ্বাসী সভাপতি প্রার্থী মানিকের ধারণা ভোটাররা তাকেই বেছে নেবেন

বাফুফে নির্বাচনে সভাপতি প্রাথী শফিকুল ইসলাম মানিক দেশের ফুটবল উন্নয়নের জন্য ২১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করার পর জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী মানিক বলেন, অনেকে বলছেন, আমি একা। কিন্ত আমি একা নই। আমার সাথে অনেক কাউন্সিলর আছেন। আমার বিশ্বাস ভোটাররা সভাপতি হিসেবে আমাকেই বেছে নেবেন।

শফিকুল ইসলাম মানিক বলেন, নির্বাচন করার পূর্বপরিকল্পনা ছিল না। অনেক দিন ধরে একজন সভাপতি পদে নির্বাচন করবেন বলে ঘোষণা দিয়েও করেননি। আরেকজনও ঘোষণা দিয়ে করেননি। আমি কয়েকজনকে অনুরোধও করেছিলাম সভাপতি পদে নির্বাচন করতে। কিন্ত কেউ সাহস পাননি। এ কারণেই আমি সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছি। শেষ পর্যন্ত লড়ে যাব। সরে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।

দেশের শীর্ষস্থানীয় কোচ ও সাবেক তারকা ফুটবলার মানিক এবারই বাফুফে নির্বাচনে সভাপতি পদে লড়ছেন। এর আগে তিনি কখনোই বাফুফের নির্বাহী কমিটিতে ছিলেন না। তবে তার দুই প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী মো. সালাউদ্দিন ও বাদল রায় দীর্ঘ ১২ বছর ধরে বাফুফের কমিটিতে আছেন। তাই তিনি মনে করেন, নতুন বলেই তাকে ভোটাররা বেছে নেবেন এবং ফুটবল উন্নয়নে কাজ করার সুযোগ করে দিবেন।

ডাকসুর সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক ও সাবেক এ তারকা ফুটবলার জাানান, ফুটবল উন্নয়নে বাফুফের ২১ সদস্যের নির্বাহী কমিটির সবাই এক মন নিয়ে কাজ করলে কোন সমস্যা হবে না। নির্বাচিত হতে পারলে একটি দল হয়ে কাজ করে ফুটবলকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করবো। তিনি আরো জাানান, পরিবর্তন শুধু সভাপতি পদেই নয়, কাজের মাধ্যমেও ক্ষেত্র পরিবর্তন করতে হবে।

সভাপতি প্রাথী শফিকুল ইসলাম মানিকের নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য ইশতেহারের মধ্যে রয়েছে জেলার ফুটবল, ঢাকার পাইওনিয়ার থেকে শুরু করে প্রথম বিভাগ ফুটবলকে অগ্রাধিকার, বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবলকে অগ্রাধিকার, আন্তঃস্কুল, অন্তঃকলেজ ফুটবলে নজরদারি তৈরি, প্রতিটি ক্লাবের অনুশীলন মাঠ, জাতীয় পর্যায়ে অনূর্ধ্ব-১৭ বঙ্গবন্ধু কাপ প্রতি বছর আয়োজন, অনূর্ধ্ব-২১ জাতীয় ফুটবলের নামকরণ শেখ জামালের নামে, অনূর্ধ্ব-১৯ সোহরাওয়ার্দী কাপ, শের-ই-বাংলা কাপ পুনরায় চালু, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক ফুটবলকে আরো আকর্ষণীয় করার ওপর ইশতেহারে জোর দিয়েছেন।